হিজাব এবং পরদাঃ to be or not be is a question now!

আমি অনেক দিন ধরেই  কথাটা বলে আসছি  ইসলাম ধর্মে কোথাও মাথায় কাপড় দেয়া বাধ্যতামূলক করে নি। যারা মাথায় হিজাব পড়েন তাদের কোন রকম অপমান বা দু:খ দিতে লিখতে বসিনি।

I respect their choice to wear hijab. But there is more to its history than we hear in popular discourse.
কিন্তু কিছু বিষয় বলা দরকার, যা আমি নিজের মা-কেও বলি।

মাথায় হিজাব দেয়া আরবিক/ আরবীয় সংস্কৃতির অংশ, যেমন কপালে টিপ পড়া বাঙালি সংস্কৃতির অংশ। 

মজার ব্যপার হল  মাথায় কাপড় দেয়াও আমাদের সংস্কৃতিতে আছে। লক্ষ্য করেছেন কি, যে হিন্দু নারীরাও পূজার সময় মাথায় কাপড় দেন? শরত বা রবিবাবুর লেখায় প্রায়-ি বলাঃ গলায় আঁচল দিয়ে প্রণাম করা হল।

 তাহলে? মাথায় কাপড় দেয়া আর হিজাব পড়াকে কিন্তু আমরা আলাদা করে ফেলেছি।

তার চেয়েও বড় ভয়ের কথা, আমরা দিন কে দিন আরবীয় সংস্কৃতি কে “ইসলামী” সংস্কৃতি বানিয়ে চলছি। নাফস এর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা মানব মাত্রের-ই দায়িত্ব। মেয়েরা এই গরমে ৩ লেয়ারের পোশাক পরবে আর পুরুষেরা বারবার খুঁজবে কোন মেয়ের শরীরের কোন অংশ দেখা যাচ্ছে, এটা পর্দা নষ্ট করার সবচেয়ে বড় উদাহরন।


আমার ব্যক্তিগত একটি গল্প বলি।


হার্ভার্ডে থাকাকালীন আমি হুডি র জিন্‌স পড়ে ক্লাসে যেতাম। অনেক সময় গোড়ালি স্পর্শ করা ড্রেস পড়তাম। স্কার্ফ নিতাম না। কোনদিন মনে হয় নি কেউ আমার শরীর হাঁ করে দেখছে ।
সেই আমি-ই নিউ ইয়র্কের জামাইকা-তে বাঙালি দোকানে রুটি কিনতে গিয়ে অস্বস্তিতে পড়লাম।কারণ। আমি ড্রেস আর পাজামা পড়া কিন্তু স্কার্ফ নেই। পর্দা যে শরীরের আগে চোখে এটা আমরা নারী-পুরুষ সবাই ভুলতে বসেছি। কুরআন  বলেছে স্বাভাবিকভাবে যা দেখা যায় তার বেশি প্রদর্শন না করতে। আমার মাথার চুল আমি যতদূর বুঝি সৃষ্টিকর্তার দেয়া। স্বাভাবিকভাবে পাওয়া। তাহলে আমাকে কেন চুল ঢাকতে হবে?

Leslie Hazelton er The First Muslim বইটি খুব চমতকারভাবে দেখিয়েছে কিভাবে পর্দা প্রথা চালু হল। it was a fashion statement for elite women, since Muhammad’s (PbuH) wives were required not to show their faces, due to Ayesha’s unfortunate accident .

পর্দা করা আসলেই কঠিন। শুধু মাথায় হিজাব পড়লেই পর্দা হয় না। 

আমরা বাংলাদেশের মুসলমান। আমাদের আরাবিয়ান মুসলমান কেন হতে হবে? নবিজী (স) কি বলেন নি, যে “কোন আরবের উপর নন-আরবের স্থান নেই, এবং কোন নন-আরবের উপরেও আরবের স্থান নেই?”

নবিজী(স) যখন মক্কা থেকে মদীনা গেলেন, ভারি দুঃখ পেয়েছিলেন স্বদেশ ছারতে হচ্ছে বলে। মক্কা আর মদীনা পাশাপাশি তাই সাংস্কৃতিক পার্থক্য খুব-ই কম। যেমনটা  বলা যায় কলকাতা আর বাংলাদেশের অনেক খাবার, পোশাক বা প্রবচন দিয়ে। 

তবে? মুসলমান হওয়ার জন্য আমি বাঙালি, বাংলাদেশি হব না?  আমরা নিজেদের বাঙ্গালি থেকে মুসলমান বানাচ্ছি আর আদিবাসিদের আদিবাসি থেকে বাঙালি বানাচ্ছি।

কবে আমরা socio-culturally ইসলাম বুঝার চেষ্টা শুরু করব? 

3 thoughts on “হিজাব এবং পরদাঃ to be or not be is a question now!”

  1. অসাধারণ লিখেছেন।
    ম্যাম,বাংলা বানানের দিকে নজর দেওয়া প্রয়োজন। বাংলা বানানে অনেক ভুল পরিদৃশ্যমান ।

  2. Well it was a good Read.I want to know more about Ayeshas unfortunate accident.

Leave a Comment

Your email address will not be published.